৩০- ২৭শে রামাযানের রাতে মাহফিল করা

২৭শে রামাযানের রাতে মাহফিল করা

রামাযান মাস উপলক্ষে রাসূলুল্লাহ্‌ (ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর হেদায়াত হল অধিকহারে ইবাদত বন্দেগী করা। বিশেষ করে রামাযানের শেষ দশকে তিনি খুব বেশী ইবাদত করার প্রচেষ্টা চালাতেন। তিনি এরশাদ করেন,

(عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهم عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ مَنْ قَامَ رَمَضَانَ إِيمَانًا وَاحْتِسَابًا غُفِرَ لَهُ مَا تَقَدَّمَ مِنْ ذَنْبِهِ ومَنْ قَامَ لَيْلَةَ الْقَدْرِ إِيمَانًا وَاحْتِسَابًا غُفِرَ لَهُ مَا تَقَدَّمَ مِنْ ذَنْبِهِ)

“যে ব্যক্তি রামাযানের রাতে ক্বিয়াম (তারাবীহ্‌ ছালাত আদায়) করবে ঈমানের সাথে ও ছওয়াবের আশায় তার পূর্বের পাপরাশী ক্ষমা করা হবে। আর যে ব্যক্তি ক্বদরের রাতে ক্বিয়াম (নফল ছালাত আদায়) করবে ঈমানের সাথে ও ছওয়াবের আশায় তার পূর্বের গুনাহ ক্ষমা করা হবে।” (বুখারী ও মুসলিম)

রামাযান মাস এবং লাইলাতুল ক্বদর সম্পর্কে এ হল নবী (ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর নির্দেশনা। কিন্তু ২৭শে রাতকে লাইলাতুল ক্বদর ভেবে সে উপলক্ষে মাহফিল করা রাসূল (ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর হেদায়াত নয়। সুতরাং নির্দিষ্টভাবে সে রাতে কোন মাহফিল করা নিঃসন্দেহে একটি বিদআত। লাইলাতুল ক্বদর ২৭শে রাতে হতে পারে, অন্য কোন রাতেও হতে পারে। যেমন নবী (ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেন, (الْتَمِسُوهَا فِي الْعَشْرِ الْأَوَاخِرِ مِنْ رَمَضَانَ) “তোমরা উহা (লায়লাতুল ক্বদর) রামাযানের শেষ দশকের বেজোড় রাতগুলোতে অনুসন্ধান কর।” (বুখারী ও মুসলিম)

 

জাযাকাল্লাহু খাইরান।

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s