২৩-যাদু, জ্যোতির্বিদ্যা, গণনা

যাদু, জ্যোতির্বিদ্যা, গণনা..

যাদু: কিছু কথা-মন্ত্র, কলাকৌশল, ঔষুধ, ধোঁয়া.. প্রভৃতির সমম্বয়ে যাদু সংঘটিত হয়ে থাকে। এর বাস্তবতা আছে। তা প্রভাবিত হয় মানুষের অন্তরে শরীরে। ফলে সে অসুস্থ হয়.. মারা যায়.. স্বামী-স্ত্রীর মাঝে বিচ্ছেদ ঘটে।

এটি একটি বড় ধরণের গুণাহ। রাসূলুল্লাহ্‌ (ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেন:

(اجْتَنِبُوا السَّبْعَ الْمُوبِقَاتِ قَالُوا يَا رَسُولَ اللَّهِ وَمَا هُنَّ قَالَ الشِّرْكُ بِاللَّهِ وَالسِّحْرُ..)

“তোমরা সাতটি ধ্বংসাত্মক বিষয় থেকে দূরে থেকো। তাঁরা প্রশ্ন করলেন, সেগুলো কি কি? তিনি বললেন, আল্লাহ্‌র সাথে শির্ক করা, যাদু করা..।” (মুসলিম)

যাদুর মধ্যে শয়তানকে ব্যবহার করা হয়, তার সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলা হয়, সে যা চায়, তার সামনে পেশ করা হয়- যাতে করে শয়তান যাদুকরের খিদমত করতে পারে। যাদুর মধ্যে অদৃশ্য জ্ঞানের দাবী করা হয়- যা সুষ্পষ্ট কুফরী ও বিভ্রান্তি। এজন্য আল্লাহ্‌ তা‘আলা বলেন,

(إِنَّمَا صَنَعُوا كَيْدُ سَاحِرٍ وَلَا يُفْلِحُ السَّاحِرُ حَيْثُ أَتَى)

“তারা যা করেছে তা তো কেবল যাদুকরের কলাকৌশল। যাদুকর যেখানেই থাকুক, সফল হবে না।” (সূরা ত্বোয়াহা- ৬৯)

যাদুকরের বিধান হল, তাকে হত্যা করা। যেমনটি ছাহাবীদের (রা:) একদল তা করেছিলেন। আশ্চর্যের বিষয়! আমরা এমন যুগে বসবাস করছি মানুষ যখন যাদুকে খুবই নগণ্য বিষয় মনে করছে। বরং এটাকে একটি আর্ট হিসেবে আখ্যা দেয়া হচ্ছে, তা নিয়ে গর্ব প্রকাশ করছে। যাদুকরদের বিভিন্নভাবে পুরস্কৃত করা হচ্ছে। যাদুর জন্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হচ্ছে- যাতে হাজার হাজার দর্শকের সমাগম ঘটছে। প্রকৃত পক্ষে এটা হল ইসলামী আক্বীদাহ্‌র প্রতি উদাসীনতা ও সে সম্পর্কে অজ্ঞতার পরিচায়ক।

একটি শিক্ষনীয় ঘটনা: প্রখ্যাত ছাহাবী আবু যর জুনদুব বিন আবদুল্লাহ্‌ (রা:) জনৈক যাদুকরের সাথে কি সুন্দর আচরণই না করেছিলেন। একদা তিনি জনৈক আমীরের বাড়িতে উপস্থিত হয়ে দেখতে পেলেন, আমীরের দরবারে এক যাদুকর তরবারী হাতে নিয়ে খেলা করছে। মানুষকে দেখাচ্ছে সে যেন তারবারী দিয়ে একজন লোকের মাথা কেটে ফেলছে আবার তা যথাস্থানে স্থাপন করছে। পরবর্তী দিন আবু যর একটি চাদরের নীচে তরবারী লুকিয়ে নিয়ে আমীরের দরবারে প্রবেশ করলেন। তখন উক্ত যাদুকর আমীরের সামনে তরবারী নিয়ে আগের মত খেলা করছে। মানুষকে যাদুর ধাঁধাঁয় বেধে রেখেছে। মানুষও আশ্চর্য হচ্ছে চমৎকৃত হচ্ছে।

আবু যর যাদুকরের কাছে গিয়ে আকস্মাৎ তরবারী বের করলেন এবং তাকে দিখন্ডিত করে ফেললেন। দেহ হতে মাথা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেল। যাদুকর মাটিতে লুটিয়ে পড়ল। তারপর আবু যর বললেন, আমি রাসূলুল্লাহ্‌ (ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)কে বলতে শুনেছি: (حد الساحر ضربه بالسيف) “যাদুকরের দন্ড হল, তাকে তরবারী দ্বারা দ্বিখন্ডিত করা।” (তিরমিযী, তবে শাইখ আলবানী হাদীছটিকে যঈফ বলেন। অবশ্য মওকূফ সূত্রে হাদীছটি ছহীহ।) অত:পর আবু যর যাদুকরের দিকে দৃষ্টিপাত করে বললেন: ‘এবার তুমি নিজেকে বাঁচাও! এখন তুমি নিজেকে বাঁচাও!!’

***

জ্যোতির্বিদ্যা, গণনা: আবু হুরায়রা ও হাসান (রা:) কর্তৃক বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ্‌ (ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেন:

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ وَالْحَسَنِ عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهم عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ مَنْ أَتَى كَاهِنًا أَوْ عَرَّافًا فَصَدَّقَهُ بِمَا يَقُولُ فَقَدْ كَفَرَ بِمَا أُنْزِلَ عَلَى مُحَمَّدٍ صَلَّى اللَّهم عَلَيْهِ وَسَلَّمَ   “যে ব্যক্তি কোন জ্যোতির্বিদ বা গণকের নিকট আগমণ করবে, অতঃপর সে যা বলে তা সত্য বলে বিশ্বাস করবে, সে মুহাম্মাদ (ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর উপর নাযিলকৃত ইসলামের সাথে কুফরী করবে।” (আহমাদ, তিরমিযী, আবূ দাঊদ, ইবনু মাজাহ্, দারেমী) অপর বর্ণনায় রাসূূলুল্লাহ্‌ (ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেন,

(مَنْ أَتَى عَرَّافًا فَسَأَلَهُ عَنْ شَيْءٍ لَمْ تُقْبَلْ لَهُ صَلَاةٌ أَرْبَعِينَ لَيْلَةً )

“যে ব্যক্তি কোন গণক বা জ্যোতির্বিদের নিকট আগমণ করে কোন বিষয়ে তাকে জিজ্ঞেস করবে, তার চল্লিশ দিনের ছালাত কবূল করা হবে না। (মুসলিম)

সতর্ক থাকা উচিত: যাদুকর, জ্যোতির্বিদ, গণক প্রভৃতিগণ মানুষের আক্বীদাহ্‌ নিয়ে খেলাধুলা করে। তারা চিকিৎসকের নাম নিয়ে আত্মপ্রকাশ করে, তারপর রোগীদেরকে গাইরুল্লাহ্‌র নামে নিভিন্ন ধরণের পশু যবেহ করার নির্দেশ দেয়.. উমুক পদ্ধতিতে খাসি যবেহ্‌ করবে.. মুরগী যবেহ করবে.. ইত্যাদি।

কখনো এরা রুগীদেরকে শয়তানী তাবীজ, শির্কী রক্ষা-কবচ লিখে দিয়ে থাকে- যা মানুষ বিভিন্ন ধরণের মাদুলীতে পুরে গলায় বা হাতে বা কমরে লটকিয়ে থাকে। অথবা বাড়ির ছাদে টাঙ্গিয়ে রাখে বা ঘরের মেঝেতে পুঁতে রাখে..।

অথচ সাধারণ মানুষ এগুলোর হাক্বীকত সম্পর্কে অজ্ঞ থাকে।

তাদের কেউ কেউ ওলীর আকৃতিতে আত্মপ্রকাশ করে। নানারকম কারমতী দেখিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা করে। যেমন নিজেকে অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে বা নিজেকে গাড়ির চাক্কার নীচে বিছিয়ে দেয়- অথচ কোন প্রতিক্রিয়া হয় না কোন ক্ষতি হয় না। প্রকৃতপক্ষে যাদুর মূল হল শয়তানী কর্ম।

জনৈক যুবকের ঘটনা। একবার সে কোন এক দেশে ভ্রমণে যায়। তারপর সে দেশের কোন নাট্য মঞ্চে গমণ করে। সে বিভিন্ন ধরণের খেলা উপভোগ করছে। এমন সময় দেখা গেল একজন মহিলা আশ্চর্য ভঙ্গিতে একটি রশির উপর দিয়ে হেঁটে চলছে। নীচে লাফিয়ে পড়ছে আবার লাফ দিয়ে উপরে উঠছে। সে যেন একটি মাকড়শা। মানুষ খুবই আশ্চর্য হয়ে অপলক দৃষ্টিতে তা অবলোকন করছে।

যুবক মনে মনে বলল, এগুলো কোন প্রশিক্ষণ মূলক খেলা তা মোটেও সম্ভব নয়। নিশ্চয় এ যাদু। সে চিন্তুা করল, হতে পারে আমি গুনাহগার; কিন্তু আমি তো তাওহীদ পন্থী। আমি এটাতে সন্তুষ্ট নই। আমি চিন্তা করলাম কি করা যায়? হঠাৎ মনে হল, আমি তো এক জুমআয় ‘যাদু ও যাদুকর’ সম্পর্কে খুতবা শুনেছিলাম। ইমাম সাহেব বলেছিলেন, যাদুকর শয়তানের সাহায্য নিয়ে থাকে। আর আল্লাহ্‌র যিকির করলে শয়তানের কৌশল বাতিল হয়ে যায়, তার শক্তি নি:শেষ হয়ে যায়। তখন আমি চেয়ার ছেড়ে উঠে দাঁড়ালাম। তারপর মঞ্চের দিকে ধীরে ধীরে এগোতে থাকলাম। এদিকে বিস্ময়ভূত মানুষ করতালি দিচ্ছে। আমার এগোনো দেখে তারা ভাবছে আমি অধিক বিস্ময়ের কারণে যাদুকের দিকে নিকটবর্তী হচ্ছি। আমি যখন মঞ্চের নিকটে নিয়ে যাদুকরের কাছে পৌঁছে গেলাম তখন তার দিকে দৃষ্টিপাত করে পাঠ করতে লাগলাম আয়াতাল কুরসী:  (الله لا إله إلا هو الحي القيوم لا تأخذه سنة ولا نوم ….)  দেখা গেল যাদুকর মহিলাটি কাঁপতে লাগল.. কাঁপতে লাগল.. এবং আল্লাহ্‌র শপথ আয়াত পড়া শেষ হল না সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ল এবং কাঁপতে থাকল। মানুষ ভীত-সন্ত্রস্ত হয়ে উঠে দাঁড়ালো। মাহিলাটিকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হল। আল্লাহ্‌ সত্যই বলেছেন: إِنَّ كَيْدَ الشَّيْطَانِ كَانَ ضَعِيفًا “নিশ্চয় শয়তানের চক্রান্ত্র দুর্বল।” (সূরা নিসা- ৭৬) তিনি আরো বলেন, وَمَكَرُوا وَمَكَرَ اللَّهُ وَاللَّهُ خَيْرُ الْمَاكِرِينَ “তারা কৌশল করে, আল্লাহ্‌ও কৌশল করেন। আর আল্লাহ্‌ সর্বোত্তম কৌশলকারী।” (সূরা আল ইমরান- ৫৪)

জাযাকাল্লাহু খাইরান।

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s